Connect with us

Highlights

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল দিতে বিড়ম্বনা

Published

on

নিজস্ব প্রতিবেদক, টেক এক্সপ্রেস:
বিকাশ, রকেট ও নগদের মতো মোবাইল ফোনভিত্তিক আর্থিক সেবার প্ল্যাটফর্ম (এমএফএস) ব্যবহার করে গত দু’দিনে ঢাকার সাধারণ গ্রাহকরা বিদ্যুৎ বিল দিতে গিয়ে ঝামেলায় পড়েছেন। বিশেষ করে ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানির (ডেসকো) প্রিপেইড গ্রাহকরা গত মঙ্গলবার সকাল থেকে বুধবার বিকেল ৩টা পর্যন্ত বিকাশ, রকেট কিংবা নগদ থেকে বিল পরিশোধ করতে পারেননি।

এদিকে ঢাকায় বিদ্যুৎ বিতরণকারী আরেকটি কোম্পানি ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ডিপিডিসি) আগেই গ্রাহকদের বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে, কারিগরি উন্নয়ন কাজের জন্য বুধবার ও বৃহস্পতিবার গ্রাহকরা অনলাইন ব্যবস্থায় বিল পরিশোধ করতে পারবেন না। তবে ডেসকো এ ব্যাপারে গ্রাহকদের কিছুই না জানিয়ে সরকারের সমন্বিত বিল পেমেন্ট সেবা ‘মেইনটেন্যান্স মোডে’ রাখে। ফলে গ্রাহকরা বিল পরিশোধ করতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হন।

রিটেইল পয়েন্টের মাধ্যমে গত কয়েক মাসে বিল দেওয়ার পরিমাণ অনেক কমে গেছে। অন্যদিকে এমএফএস সেবার মাধ্যমে বিল পরিশোধের পরিমাণ প্রতিনিয়ত বাড়ছে। একমাত্র রিটেইল পয়েন্ট থেকে বিল পরিশোধের ক্ষেত্রেই ১০ টাকা চার্জ নেওয়ার নিয়ম আছে, অন্য ক্ষেত্রে নেই। ফলে গ্রাহকদের অনেকে রিটেইল পয়েন্টে যেতে বাধ্য হয়ে ক্ষোভ প্রকাশও করেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কভিড-১৯ মহামারিতে এমএফএস সেবা বিকাশ, রকেট ও নগদের মাধ্যমে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের পরিমাণ জ্যামিতিক হারে বেড়েছে। মানুষ ব্যাংকে, ভেন্ডিং সেন্টারে কিংবা রিটেইল পয়েন্টে না গিয়ে বাসায় বসে নিজের মোবাইল ফোন থেকে বিল পরিশোধের সুবিধা নিচ্ছেন। সর্বশেষ গত আগস্টে এমএফএস সেবার মাধ্যমে শুধুমাত্র বিকাশ ব্যবহার করেই ৩০ লাখ গ্রাহক বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করেছেন। এ ছাড়া রকেট ও নগদ ব্যবহার করে পরিশোধ করেছেন আরও প্রায় ২০ লাখ গ্রাহক। কিন্তু গত মঙ্গলবার থেকে বেশিরভাগ গ্রাহকই এমএফএস সেবার মাধ্যমে ডেসকোর বিল পরিশোধ করতে গিয়ে বারবার ব্যর্থ হন।

ভুক্তভোগী গ্রাহকরা জানান, বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে সমস্যা হলে সচরাচর ‘কানেক্টিং এরর’ বা ‘পেমেন্ট নট সাকসেসফুল’ মেসেজ দেখা যায়। কিন্তু মঙ্গলবার সকাল থেকে ‘ইনভ্যালিড বিল ইনফরমেশন’ মেসেজ দেখা যাচ্ছিল। এ ব্যাপারে ডেসকোর অভিযোগকেন্দ্রে ফোন করলে অন্যদিক থেকে প্রথমে জানতে চাওয়া হয় কোন সেবামাধ্যমে চেষ্টা করছেন। উত্তরে কেউ বিকাশের কথা জানালে সঙ্গে সঙ্গে জানানো হয়, ‘এটা বিকাশের সমস্যা’। একইভাবে কোনো ভুক্তভোগী ডেসকোর অভিযোগকেন্দ্রে নগদ সেবামাধ্যমের কথা জানালেও উত্তর দেওয়া হয়, ‘এটা নগদের সমস্যা। আরও কোনো অভিযোগ থাকলে অফিসে আসুন।’

একপর্যায়ে ভুক্তভোগী গ্রাহকদের অনেকে ভিড় জমান ডেসকোর নিজস্ব ভেন্ডিং স্টেশনে। মহামারিকালে এসব ভেন্ডিং স্টেশনে কোনো ভিড় না থাকলেও মঙ্গল ও বুধবার সকালে লম্বা লাইন দেখা যায়। একই সঙ্গে লাইন দেখা যায় রিটেইল পয়েন্টগুলোতেও। কারণ, এমএফএস ব্যবস্থায় ব্যর্থ হয়ে ভেন্ডিং স্টেশনের ভিড় এড়াতে শেষ পর্যন্ত অনেকেই যান রিটেইল পয়েন্টে।

সরকারি সব বিল ব্যবস্থাকে একটি সমন্বিত ব্যবস্থায় নিয়ে আসার জন্য সরকার একটি নিজস্ব গেটওয়ে তৈরি করেছে। যার নাম ‘এক পে’। এমএফএস সেবার মাধ্যমে বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোন বা অন্যান্য সরকারি সেবার বিল এই গেটওয়ে দিয়ে যায়। এ উদ্যোগটি ইতোমধ্যেই প্রশংসা কুড়িয়েছে। বিল পরিশোধে কী সমস্যা দেখা দিয়েছিল, সে ব্যাপারে অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানা যায়, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে বুধবার বিকেল ৩টা পর্যন্ত ডেসকোর গেটওয়ে অ্যাকসেস পয়েন্টে ‘মেইনটেন্যান্স মোড’ ছিল। এই মোড চালু করতে সক্ষম কেবল সংশ্নিষ্ট সেবাদাতা কোম্পানি। অর্থাৎ ডেসকোর দিক থেকেই এই মোড চালু করা হয়েছিল। গেটওয়ে কিংবা এমএফএস সেবার মাধ্যমে এই গেটওয়ে দিয়ে ডেসকোর সার্ভারে গ্রাহকের বিল পরিশোধের তথ্য তাই পৌঁছতে পারছিল না। এ কারণে গ্রাহকরা বিল পরিশোধে ব্যর্থ হচ্ছিলেন। ডেসকোর সার্ভারে সংযুক্ত হতে না পারায় তারা ‘ইনভ্যালিড বিল ইনফরমেশন’ মেসেজ পাচ্ছিলেন। বুধবার বিকেল ৩টার পর এমএফএস ব্যবস্থায় বিল পরিশোধ স্বাভাবিক হলেও গ্রাহকদের বিল পরিশোধের ‘সাকসেসফুল’ বার্তা পেতে বেশ সময় লাগছিল।

এ ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে ডেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাওসার আমির আলী সমকালকে বলেন, ‘পোস্টপেইড বিল পরিশোধের ক্ষেত্রে ‘এক পে’ গেটওয়েতে পূর্ণ মাত্রায় সংযুক্ত হওয়া সম্ভব হয়েছে, তবে প্রিপেইডের ক্ষেত্রে এখনও ফাইন টিউনিং চলছে।’ তিনি জানান, প্রিপেইড গ্রাহকরা যে সমস্যায় আছেন, সেজন্য ‘এক পে’ গেটওয়ে কিংবা ডেসকো দায়ী নয়। তবে বিকাশ ও নগদ দুটি এমএফএস সেবার মাধ্যমে বিল পরিশোধে কিছু সমস্যা হচ্ছে, এটা সত্যি। সেবা স্বাভাবিক করতে ওই দুটি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা চলছে। বিকাশ সাত দিনের সময় চেয়েছে।

এ ব্যাপারে বিকাশের চিফ কমিউনিকেশন কর্মকর্তা শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, বিকাশের দিক থেকে কোনো সমস্যা নেই। কারিগরি সব দিকও ঠিক আছে। তবে বিকাশ প্ল্যাটফর্ম থেকে ডেসকোর সার্ভারে পাঠানোর পর সেখানে প্রবেশের ক্ষেত্রে মাঝেমধ্যে কিছুটা বেশি সময় লাগছে। এজন্য বিকাশের দায় নেই। বিকাশ থেকে যথাসময়েই বিল ডেসকোর সার্ভারে পাঠানো হচ্ছে। কিন্তু ডেসকোর সার্ভারে ঢুকতে সময় লেগে যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে নগদের হেড অব পাবলিক রিলেশন্স মুহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম জানান, নগদের নেটওয়ার্কে তারা কোনো সমস্যা দেখতে পাননি। সাধারণ সময়ের তুলনায় গত দু’দিনে বিল কম জমা হতে দেখা গেছে নগদের প্ল্যাটফর্ম থেকে।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

বিপুল সংখ্যক অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্ট হ্যাকড

Published

on

জনপ্রিয় অ্যান্টিভাইরাস ‘নর্টন’-এর হাজার হাজার গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে। হ্যাকারেরা গ্রাহকদের পাসওয়ার্ড ম্যানেজারে প্রবেশাধিকার পেয়ে থাকতে পারে বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে কোম্পানিটি। গ্রাহকদের পরিচয় সুরক্ষা ও সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক বিভিন্ন সেবা দেয় নর্টন।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেক ক্রাঞ্চের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, গ্রাহকদের উদ্দেশে দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে নর্টনের মূল কোম্পানি ‘জেন ডিজিটাল’ জানায়, বিভিন্ন ওয়েবসাইটে আগেই প্রকাশ পাওয়া বা হাতিয়ে নেওয়া বিভিন্ন তথ্য বা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে এই হ্যাকিংয়ের ঘটনা ঘটেছে। যারা ‘পাসওয়ার্ড ম্যানেজার’ ফিচারটি ব্যবহার করেন তাঁদেরই মূলত এই বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছে নর্টন।

অনুপ্রবেশকারী গ্রাহকের সংরক্ষিত পাসওয়ার্ডের তথ্যও পেয়েছে -এমন শঙ্কার কথা উড়িয়ে দিচ্ছে না কোম্পানিটি। জেন ডিজিটাল আরও জানায়, প্রায় ৬ হাজার ৪৫০ জন অ্যাকাউন্ট হারানো গ্রাহকের কাছে বিজ্ঞপ্তিটি পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, নাম ও পাসওয়ার্ড দিয়ে অ্যাকাউন্টে প্রবেশের সময় অননুমোদিত এক তৃতীয় পক্ষ ব্যবহারকারীর প্রথম নাম, পদবি, ফোন নম্বর ও ই-মেইল ঠিকানা দেখে ফেলেছে।

এই ধরনের আক্রমণ প্রতিরোধ করতে গ্রাহকদের ‘টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন’ ব্যবস্থা ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে নর্টন। ফলে, শুধু পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে গ্রাহকের অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করতে পারবে না হ্যাকার।

কোম্পানিটির নিজস্ব অনুসন্ধান অনুযায়ী, ১ ডিসেম্বর থেকেই অ্যাকাউন্টের তথ্য চুরির কাজ শুরু করেছিল হ্যাকার। আর ১২ ডিসেম্বর নাগাদ কোম্পানি নিজস্ব সিস্টেমে গ্রাহকদের ‘ব্যর্থ লগইনের’ বিশাল অংশ শনাক্ত করে।

Continue Reading

Highlights

ব্যবহারে ৩ ভুলে হ্যাক হতে পারে স্মার্টফোন

Published

on

সারাক্ষণ স্মার্টফোনে বুঁদ হয়ে আছেন। বস বয়সী নারী-পুরুষ স্মার্টফোন ব্যবহার করছেন। দূর-দূরান্তে অডিও-ভিডিওতে কথা বলা, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার কিংবা গেম খেলা নানান কাজে স্মার্টফোনের বিকল্প কমই আছে। বর্তমান সময়ে স্মার্টফোন দূরে রেখে এক মুহূর্তও কাটানো সম্ভব নয়।

তবে হ্যাকারদের জন্য স্মার্টফোন সুরক্ষা এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যতই প্রযুক্তি উন্নত হচ্ছে সঙ্গে হ্যাকাররা নতুন উপায় খুঁজে নিচ্ছে হ্যাকিংয়ের। স্মার্টফোন হ্যাক করে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য, ব্যক্তিগত ছবি, ভিডিও, জরুরি ফাইল চুরি করছে। এরপর সেগুলো বিক্রি করে দিচ্ছে বিভিন্ন সংস্থার কাছে কিংবা ব্যবহারকারীকে ব্ল্যাকমেইল করে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা। তবে জানেন কি, সহজে বহনযোগ্য এই ডিভাইসটি ব্যবহারের ভুলেই হতে পারে হ্যাক।

হ্যাঁ, ঠিকই শুনেছেন, আপনার ব্যবহারের সামান্য কিছু ভুলের কারণে হ্যাকারদের হাতে চলে যেতে পারে ব্যক্তিগত তথ্য। চলুন জেনে নেওয়া যাক এমন তিনটি ভুল ব্যবহার সম্পর্কে-

ফোন রোটেট করা-
অনেক সময় বই পড়তে কিংবা সিনেমা, নাটক দেখার সময় ফোন রোটেট করেন। আরও বিভিন্ন ফিচার ব্যবহারের জন্য রোট করে নেন স্মার্টফোনটি। সুরক্ষিতভাবে স্মার্টফোন ব্যবহার করতে চাইলে ফোন রোটেট করবেন না। ফোন রোট থাকলে হ্যাকারদের হাতে এমন অনেক ফাইল চলে যেতে পারে যার ফলে নিমেষে ফাঁকা হয়ে যেতে পারে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট।

ফোনের অ্যাপ আপডেট করুন-
অনেকেই স্মার্টফোনের অ্যাপ আপডেট করেন না। ফোনের স্টোরেজের কথা ভেবেই গুরুত্বপূর্ণ কাজটি এড়িয়ে যান। তবে আপনার এই ভুলে খুব সহজেই পুরোনো অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে স্মার্টফোন হ্যাক হয়ে যেতে পারে। অ্যাপ্লিকেশনের পুরোনো ভার্সনের মধ্যে কিন্তু বাগ থেকে যাওয়া কোনো অবাক কাণ্ড নয়। মোবাইলে খুব পুরোনো কোনো অ্যাপ থাকলে এবং তা যদি বহু বছর তার কোনো আপডেট না এলে, সেই অপ্রয়োজনীয় অ্যাপটি আনইনস্টল করে দেওয়ার চেষ্টা করুন।

অ্যাপ ডাউনলোডে সতর্কতা-
অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বা ইনবক্সে শেয়ার করা লিংক থেকে অ্যাপ ডাউনলোড করেন। ভুলেও একি কাজটি করবেন না। অ্যাপের মতো দেখতে বিভিন্ন ভুয়া অ্যাপ্লিকেশন বা স্পাইওয়ার ঘুরে বেড়াচ্ছে ব্রাউজার বা বিভিন্ন জায়গায়। সেসব একবার নামিয়ে ফেললেই কিন্তু সর্বনাশ। সেসব অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমেই চুরি যেতে পারে আপনার ব্যাংকের পাসওয়ার্ডের মতো বহু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। তাই অ্যাপ নামানোর সময়ে সতর্ক থাকুন। কোনো থার্ড পার্টি অ্যাপ ডাউনলোডের সময় গুগল প্লে স্টোর বা অ্যাপ স্টোরের মতো অথোরাইজড জায়গা থেকেই ডাউনলোড করুন। সূত্র: গ্যাজেটস নাও

Continue Reading

Highlights

ট্রুকলারে নিজের নাম একেবারে মুছে ফেলবেন যেভাবে

Published

on

ব্যবহারকারীদের জন্য একের পর এক স্মার্টফোন অ্যাপ সহজ করছে ব্যবহার পদ্ধতি। এরমধ্যে সবচেয়ে দরকারী এবং জনপ্রিয় অ্যাপ হচ্ছে ট্রুকলার। অপরিচিত নম্বরগুলো শনাক্ত করার জন্য এই অ্যাপ বেশ জনপ্রিয়। কোনো অচেনা নম্বর থেকে ফোন এলে ট্রুকলারের মাধ্যমে সহজেই সেই কলারের পরিচয় জেনে নেওয়া যায়।

এই ফিচারই অল্পদিনের মধ্যে দুর্দান্ত জনপ্রিয় করে তুলেছিল ট্রুকলারকে। একদিকে যেমন আপনি অজানা নম্বর ট্রুকলার থেকে দেখছেন, অন্যদিকে আপনার ফোন নম্বরও ফোনের অন্য প্রান্তে ট্রুকলারে ভেসে ওঠে। ফলে আপনার পরিচয় সহজেই জেনে নিতে পারে যে কেউ। চাইলে ট্রুকলার থেকে নিজের নাম ডিলিট করতে পারবেন-

অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন থেকে যেভাবে করবেন-

  • আপনার অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে ট্রুকলার অ্যাপ লগ ইন করুন।
  • এবার সেটিংসে গিয়ে প্রাইভেট সেন্টার অপশনে ক্লিক করুন।
  • এখানে ডিঅ্যাক্টিভ অপশন দেখতে পাবেন। এই অপশনটি সিলেক্ট করে দিন।

আইফোনে যেভাবে কাজটি করবেন-

  • প্রথমে আপনার আইফোন থেকে ট্রুকলার অ্যাপ ওপেন করুন।
  • এবার প্রোফাইল ছবিতে ট্যাপ করুন।
  • এরপর সেটিংসে গিয়ে প্রাইভেসি সেন্টার ক্লিক করুন।
  • সেখানেই পাবেন ডিঅ্যাক্টিভ অপশন। সিলেক্ট করলেই কাজ শেষ।

তবে এরপরও আপনার নাম ট্রুকলার ডেটাবেসে থেকে যেতে পারে। তাই নিজের নাম ট্রুকলার থেকে আনলিস্ট করতে হবে। এজন্য www.truecaller.com/unlisting ওয়েবসাইট ওপেন করুন। এখানে এইএসডি কোডসহও মোবাইল নম্বর এন্টার করুন। এর পরে সিলেক্ট করুন আনলিস্ট। সূত্র: গ্যাজেট ৩৬০

Continue Reading

Trending