Tech Express - টেক এক্সপ্রেস
immersive

মেটাভার্স কী, কেন?

খুব দ্রুত প্রযুক্তি জগতের বহুল ব্যবহৃত একটি শব্দে পরিণত হচ্ছে ‘মেটাভার্স’। সম্প্রতি ফেইসবুক জানিয়েছে, ইউরোপে মেটাভার্স তৈরি প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে দশ হাজার কর্মী নিয়োগ দেবে তারা। অন্যদিকে, মাইক্রোসফট, রোব্লক্স ও এবং ফোর্টনাইট নির্মাতা এপিক গেইমস-ও ব্যস্ত নিজ নিজ সংস্করণের মেটাভার্স তৈরির পরিকল্পনা নিয়ে।

প্রশ্ন হচ্ছে- মেটাভার্স কী?

অনেক কল্পবিজ্ঞান বই ও চলচ্চিত্রেই দেখানো হয় মানুষ পুরোপুরি নিজেদের তৈরি এক দুনিয়ায় ডুবে রয়েছেন। সেখানে আরও দেখা যায়, বাস্তব দুনিয়া ও মেটাভার্সের মধ্যে দৃশ্যত কোনো পার্থক্য নেই। আলাদা করারও তেমন কোনো উপায় নেই। এরকম বই ও চলচ্চিত্রের উদাহরণ রয়েছে অসংখ্য।

কিন্তু মেটাভার্সের বর্তমান বাস্তবতা সে অবস্থা থেকে এখনও অনেকটাই দূরে। ইন্টারনেটে বিদ্যমান ভার্চুয়াল জগতগুলো দেখলে বাস্তব জগতের বদলে সম্ভবত ভিডিও গেইমের কথাই মনে আসবে প্রথমে।

‘মেটাভার্স’ মূলত ব্যাপক অর্থে ব্যবহৃত একটি পরিভাষা। সাদামাটা অর্থে, ইন্টারনেটের মাধ্যমে প্রবেশ করা যাবে এমন ‘শেয়ার্ড ভার্চুয়াল পরিবেশ’ বলা যেতে পারে একে।

ভার্চুয়াল রিয়ালিটি (ভিআর) বা অগমেন্টেড রিয়ালিটি (এআর) ব্যবহার করে প্রাণবন্ত করে তোলা হয়েছে এমন কোনো ডিজিটাল স্থান বুঝাতেও অহরহ ব্যবহার করা হয়ে থাকে ‘মেটাভার্স’ শব্দটি।

অনেকে আবার মেটাভার্স বলতে সুনির্দিষ্টভাবে গেইমিং জগতকে বুঝিয়ে থাকেন, যেখানে প্রত্যেক ব্যবহারকারীর একটি চরিত্র থাকবে যা ঘুরে-ফিরে বেড়াতে পারবে এবং অন্য খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলতে ও নানা কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারে।

এদিকে, পুরোপুরি ব্লকচেইন প্রযুক্তি নির্ভর সুনির্দিষ্ট ঘরানার আলাদা মেটাভার্সই রয়েছে। এ ধরনের মেটাভার্সে ক্রিপ্টোকারেন্সি খরচ করে ভার্চুয়াল জমি এবং অন্যান্য ডিজিটাল সম্পদ কিনতে পারেন ব্যবহারকারীরা।

মেটাভার্সে কেন?

প্রশ্ন উঠতেই পারে এতোকিছু থাকতে মেটাভার্সের দিকে কেন ঝুঁকছেন মানুষ? এর উত্তরে রয়টার্সের প্রতিবেদনের আলোকে বলা যেতে পারে– মেটাভার্স ভক্তরা এটিকে ইন্টারনেট উন্নয়নের পরবর্তী ধাপ হিসেবে দেখছেন।

বর্তমানে মানুষ যোগাযোগের ক্ষেত্রে অনলাইনের বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্যবহার করেন। যেমন- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদি। কিন্তু মেটাভার্সের ধারণাটিই হলো এমন একটি অনলাইন স্থানের যেখানে মানুষের যোগাযোগ হবে বহুমাত্রিক। ব্যবহারকারীরা এ ধরনের স্থানে কন্টেন্ট শুধু দেখা নয়, তাতে পুরোপুরি নিজেকে নিমজ্জিত করে ফেলতে পারবেন।

স্বভাবতই মানুষের আগ্রহ তৈরি হয়েছে একে ঘিরে। মেটাভার্সের প্রতি মানুষের বাড়তি আগ্রহকে কোভিড-১৯ মহামারীর একটি ফল-ও বলা যেতে পারে। বহু মানুষ এই সময়টিতে দূর থেকেই দাপ্তরিক কাজ সেরেছেন। বিশ্বের বহু শিক্ষার্থীও পড়ালেখা চালিয়ে গেছেন এ প্রক্রিয়াতেই।

এ পরিস্থিতিতে অনলাইন যোগাযোগকে আরও প্রাণবন্ত করার চাহিদাও দেখা দিয়েছে মানুষের মধ্যে।

কারা যুক্ত হচ্ছেন মেটাভার্সের সঙ্গে?

বহু বিনিয়োগকারী এবং প্রতিষ্ঠানের নজর কেড়েছে মেটাভার্স ধারণাটি। অনেক ক্ষেত্রেই আগ্রহীরা পরবর্তী বড় উদ্যোগের অংশ হতে চাইছে।

ফেইসবুক প্রধান মার্ক জাকারবার্গ জুলাইয়ে জানান, আগামী পাঁচ বছরের মতো সময়ের মধ্যেই তার প্রতিষ্ঠান সামাজিক মাধ্যম প্রতিষ্ঠান থেকে মেটাভার্স প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত হবে।

এদিক, সিলিকন ভ্যালিতেও মেটাভার্স বেশ জনপ্রিয় একটি পরিভাষা। এ ধরনের একটি পরিকল্পনার ব্যাপারে জানিয়েছে মাইক্রোসফটও। ডিজিটাল ও বাস্তব বিশ্বকে মিলিয়ে দেওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেছে মার্কিন এ সফটওয়্যার জায়ান্ট।

জনপ্রিয় শিশুবান্ধব গেইম রোব্লক্স নিজেদেরকে মেটাভার্স প্রতিষ্ঠান হিসেবেই দাবি করে থাকে। অন্যদিকে, ফোর্টনাইট নির্মাতা এপিক গেইমসেরও দাবি, তারা মেটাভার্সের একটি অংশ।

সঙ্গীতশিল্পীরা এ ধরনের প্ল্যাটফর্মে ভার্চুয়াল কনসার্ট করার সুযোগ পাচ্ছেন। উদাহরণ হিসেবে সেপ্টেম্বরের এক আয়োজনের কথা বলা যেতে পারে। ভার্চুয়াল ওই আয়োজনে ফোর্টনাইটে ভার্চুয়ালি হাজির হয়েছিলেন সঙ্গীতশিল্পী আরিয়ানা গ্রান্ডে। এপিক গেইমস জানিয়েছে, লাখো মানুষ অংশ নিয়েছিলেন ওই কনসার্টে।

বিশ্বের বড় বড় ফ্যাশন প্রতিষ্ঠানগুলোও ‘ভার্চুয়াল ক্লোথিং’ নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছে। এতে মেটাভার্স পরিবেশে মানুষের অ্যাভাটারকে বিভিন্ন কাপড় পরিয়ে দেখা যাবে।

webadmin

Follow us

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.