Tech Express - টেক এক্সপ্রেস
Mobilephone

বিদেশ থেকে আনা মোবাইল সেট নিবন্ধন করবেন যেভাবে

দেশের সকল অবৈধ ফোন বন্ধ করার প্রক্রিয়া বেশ কিছুদিন ধরে শুরু হয়েছে। ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি রেজিস্টারের (এনইআইআর) কার্যক্রম গত ১ জুলাই থেকে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু হয়। পরে ১ অক্টোবর থেকে অবৈধ ফোন বন্ধের কার্যক্রম শুরু করে বিটিআরসি। গত ২৫ নভেম্বর অবৈধ মোবাইল চিহ্নিত করতে ও ধরতে প্রযুক্তিগত সহায়তা নিতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন- বিটিআরসি’র সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করে আইটি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সিনেসিস আইটি।

জানা গেছে, ১ অক্টোবর থেকে বন্ধ হচ্ছে সব ধরনের অবৈধ মোবাইল ফোন। এদিন থেকে অবৈধ সেট চালু করতে গেলে তা গ্রাহককে এসএমএস পাঠিয়ে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই বন্ধ হয়ে যাবে। এসএমএসে জানানো হবে, ‘সেটটি অবৈধ, কিছুক্ষণের মধ্যে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে’। অবৈধ পথে দেশে আনা বা অনিবন্ধিত ফোন সেটগুলো কাল থেকে এভাবেই অচল হয়ে পড়বে বলে গণমাধ্যমকে জানান টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র।

বিদেশ থেকে আনা বা উপহার পাওয়া ফোন রেজিস্ট্রেশন করা যাবে যেভাবে:

বিটিআরসি জানিয়েছে, বিদেশ থেকে ব্যক্তি পর্যায়ে বৈধভাবে ক্রয়কৃত অথবা উপহারপ্রাপ্ত মোবাইল হ্যান্ডসেট স্বয়ংক্রিয় ভাবে নেটওয়ার্কে সচল থাকবে। ১০ দিনের মধ্যে অনলাইনে তথ্য বা প্রয়োজনীয় দলিল প্রদান করার জন্য এস এম এস প্রদান করা হবে। দশ দিনের মধ্যে নিবন্ধন সম্পন্ন করলে উক্ত হ্যান্ডসেট বৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। উক্ত সময়ের মধ্যে নিবন্ধন সম্পন্ন না করা হলে হ্যান্ডসেটটি বৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে না এবং সেগুলো সম্পর্কে গ্রাহককে এসএমএস মাধ্যমে অবহিত করে পরীক্ষাকালীন সময়ের জন নেটওয়ার্কে সংযুক্ত রাখা হবে। পরিক্ষাকালীন সময় অতিবাহিত হলে সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দেখে নেয়া যাক, বিদেশ থেকে ক্রয়কৃত অথবা উপহারপ্রাপ্ত মোবাইল হ্যান্ডসেট প্রয়োজনীয় তথ্যাদি প্রদানের মাধ্যমে স্থায়ী ভাবে নিবন্ধন করার প্রক্রিয়াঃ

ধাপ ১ – neir.btrc.gov.bd লিঙ্কে ভিজিট করে আপনার ব্যক্তিগত একাউন্ট রেজিস্টার করুন।
ধাপ ২ – পোর্টাল এর Special Registration সেকশনে গিয়ে মোবাইল হ্যান্ডসেট এর IMEI নম্বরটি দিন।
ধাপ ৩ – প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট এর ছবি / স্ক্যান কপি (অপশনে যা যা চাওয়া হয়; যেমনঃ পন্য ক্রয়ের রশিদ, চালান পত্র, পাসপোর্টে ভিসার কপি, ইমিগ্রেশন কপি ইত্যাদি) আপলোড করুন এবং Submit বাটন-টি প্রেস করুন।
ধাপ ৪ – মোবাইল হ্যান্ডসেটটি বৈধ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হবে। হ্যান্ডসেটটি বৈধ না হলে এসএমএস এর মাধ্যমে আপনাকে অবহিত করে পরীক্ষাকালীন সময়ের জন্য নেটওয়ার্কে সংযুক্ত রাখা হবে। পরিক্ষাকালীন সময় অতিবাহিত হলে সরকারের সিধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বিকল্প হিসেবে মোবাইল অপারেটরের নিকটস্থ কাস্টমার কেয়ার সেন্টারের সাহায্যে বর্ণিত সেবাটি গ্রহণ করা যাবে।

এক্ষেত্রে মনে রাখা আবশ্যক, বিদ্যমান ব্যাগেজ রুলস অনুযায়ী একজন ব্যক্তি বিদেশ থেকে শুক্লবিহীন সর্বচ্চো ২ টি এবং শুল্ক প্রদান সাপেক্ষে আরও ৬ টি মোবাইল হ্যান্ডসেট আনতে পারবেন।

প্রসঙ্গত গত ১ জুলাই এনইআইআর সিস্টেমটি চালু হয়। সিস্টেমটি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করে বিটিআরসি। সে সময় বলা হয়, ৩০ জুন পর্যন্ত মোবাইল ফোন অপারেটরের নেটওয়ার্কে চালু থাকা সব মোবাইল ফোন সেট স্বয়ংক্রিয়ভাবে এনইআইআর সিস্টেমে নিবন্ধিত হয়ে যাবে। ১ জুলাই থেকে নতুন সেটগুলো চালু করতে হলে নিবন্ধন করে চালু করতে হবে। ১ জুলাইয়ের পরে দেশে চালু হওয়া অবৈধ সেট নিবন্ধনের জন্য ৩ মাস চালু থাকবে। ৩ মাস পরে সেটগুলো নিয়ে সিদ্ধান্তের কথা জানানো হবে।

মূলত দেশে অবৈধ বা নন-চ্যানেল মোবাইল ফোনের প্রবেশ বন্ধ করতে সরকার এনইআইআর সিস্টেম চালু করে। এতে দেশে আসা অবৈধ মোবাইল ফোন বা নন-চ্যানেল ফোন চিহ্নিত করা সহজ হবে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি সেগুলো চিহ্নিত করে বন্ধের উদ্যোগ নেবে। ফলে দেশে উৎপাদিত মোবাইল ফোনের বাজার আরও বড় হবে। অপরদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আশা, এনইআইআর সিস্টেম চালু হলে দেশে মোবাইল ফোন কেন্দ্রিক অপরাধের সংখ্যা কমবে। এ সিস্টেম চালু হলে চুরি বা ছিনতাই হওয়া ফোনে অন্য সিম দিয়ে নেটওয়ার্কে চালু করা যাবে না।

webadmin

Follow us

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.