Connect with us

Entrepreneur

উদ্যোক্তা-ব্যবসায়ীদের অধিকতর সুবিধা দেবে ফেসবুক

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের আরও অধিকতর সুবিধা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক। এসব সুবিধার মধ্যে আছে ফেসবুকে থাকা ‘শপ’ হোয়াটসঅ্যাপ ও মার্কেটপ্লেসেও নিয়ে আসা, বিশেষায়িত বিজ্ঞাপন প্রচারের সুবিধা এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটি (এআর) এবং কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তির মাধ্যমে গ্রাহকদের পণ্য যাচাই করার সুবিধা দেওয়া। সম্প্রতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এমনটা জানায় ফেসবুক।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বিগত কয়েক দশক ধরে মানুষের কেনাকাটার ধরনে আমূল পরিবর্তন এসেছে। সরাসরি শপিং সেন্টারে যাওয়ার থেকে এখন তারা ঘরে বসেই অনলাইনে পণ্যের কেনাকাটা করছেন। এমনকি এখন অনেকেই পণ্য যাচাই করতেও আর দোকানে যেতে চান না। একটি সানগ্লাস পরলে নিজেকে কেমন দেখাবে সেটাও তারা ঘরে বসেই করতে চান। এরজন্যই আমরা অনলাইন কেনাকাটাকে আরও সহজ করতে গ্রাহক এবং ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তাদের জন্য কিছু সুবিধা নিয়ে এসেছি।

ফেসবুক শপের বিস্তার :

ফেসবুকে থাকা বিভিন্ন ব্যবসা-উদ্যোগের পেইজ এতদিন শুধু ‘শপ’ আকারে গ্রাহকদের দেখানো যেতো। ফেসবুক সুযোগ দিয়েছে এখন সেটিকে ‘হোয়াটসঅ্যাপ’ এবং ‘মার্কেটপ্লস’-এ দেখানোর। এর ফলে ফেসবুকেরই মার্কেটপ্লেস এবং হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস অ্যাপের মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা তাদের অনলাইন শপকে আরও অধিক গ্রাহকের কাছে নিয়ে যেতে পারবেন।

ফেসবুক জানায়, বর্তমানে প্ল্যাটফর্মটিতে গড়ে প্রতিমাসে অন্তত ৩০ কোটি মানুষ অনলাইন শপ পরিদর্শন করেন। আর সেখানে প্রতিমাসে গড়ে সক্রিয় দোকান থাকে প্রায় ১২ লাখ। ফেসবুক এসব শপকে সুযোগ দেবে নির্দিষ্ট কিছু দেশের হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস অ্যাপ ব্যবহার করার। প্রথম ধাপে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা বিভিন্ন শপকে বিশ্বের অন্তত ১০০ কোটি গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেবে ফেসবুক।

এছাড়াও ইন্সটাগ্রামে থাকা বিভিন্ন শপ সম্পর্কে ক্রেতারা যেন রিভিউ এবং রেটিং দিতে পারেন সেই ফিচারও আনতে যাচ্ছে ফেসবুক।

বিশেষায়িত বিজ্ঞাপন :

বিজ্ঞাপন দাতারা যেন সর্বাধিক হারে এমন গ্রাহকদের কাছে পৌঁছাতে পারেন যারা তাদের পণ্য বা সেবা কিনবেন তার জন্য বিশেষায়িত বিজ্ঞাপন সুবিধা আনছে ফেসবুক। একই সাথে গ্রাহকের নিউজফিডে সেই ধরনের পণ্যের বিজ্ঞাপনই বেশি দেখানো হবে যেসব পণ্য তিনি সচরাচর কিনতে ইচ্ছুক। এছাড়াও শপ যদি একেক জন গ্রাহকের জন্য একেকভাবে আলাদা আলাদা বিজ্ঞাপন ও অফার প্রচার করতে চান সেই সুযোগও আনছে ফেসবুক।

ভবিষ্যৎ কেনাকাটায় এআই ও ভিআর :

ফেসবুক বলছে, অদূর ভবিষ্যতে গ্রাহকেরা অনলাইন কেনাকাটায় ব্যবহার করবেন এআই এবং ভিআর এর মতো প্রযুক্তি। বর্তমানেও এসব প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগতে শুরু করেছে বলে মনে করছে প্ল্যাটফর্মটি। ইতোমধ্যে ইন্সটাগ্রামে কোনো ছবিতে থাকা পণ্য খোঁজার সুবিধা চালু করেছে ফেসবুক। যেমন কোনো ছবিতে হলুদ রঙের নির্দিষ্ট ডিজাইনের কোনো পোশাক থাকলে সেটিতে ক্লিক করলে ওই পোশাকটি কোন অনলাইন শপে কেনা যাবে সেটি জানিয়ে দেবে ইন্সটাগ্রাম। এছাড়াও গ্রাহকেরা কোনো পণ্য যেন ঘরে বসেই অনলাইনে ‘ট্রায়াল’ দিতে পারেন এআই এবং এআর প্রযুক্তির মাধ্যমে সেসব ফিচারও আনার ঘোষণা দিয়েছে ফেসবুক।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Entrepreneur

ইউটিউবের হঠাৎ করে আয় কমে যাওয়ার কারণ কী?

Published

on

ইউটিউবের হঠাৎ করে আয় কমে যাওয়ার কারণ বিভিন্ন হতে পারে। নির্দিষ্ট কারণ নির্ধারণের জন্য একাধিক দিক বিশ্লেষণ করা অপরিহার্য। YouTube-এ বিজ্ঞাপনের আয়ের ওঠানামার কিছু সাধারণ কারণ হল-

ডিমনিটাইজেশন: YouTube-এর সম্প্রদায় নির্দেশিকা, পরিষেবার শর্তাবলী, বা বিজ্ঞাপন নীতিগুলি লঙ্ঘন করে এমন ভিডিওগুলি demonetized বা সীমিত নগদীকরণ হতে পারে৷ এর ফলে প্রভাবিত ভিডিও বা চ্যানেলের বিজ্ঞাপনের আয় উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যেতে পারে।

বিষয়বস্তু পরিবর্তন: আপনার বিষয়বস্তুর ধরণে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন হলে, এটি বিজ্ঞাপনের প্রাসঙ্গিকতা এবং দর্শকদের অংশগ্রহণকে প্রভাবিত করতে পারে। বিজ্ঞাপনদাতারা নির্দিষ্ট জনসংখ্যা বা বিষয়বস্তু বিভাগকে লক্ষ্য করতে পারে এবং আপনার বিষয়বস্তুর পরিবর্তনগুলি বিজ্ঞাপন বসানোকে প্রভাবিত করতে পারে।

ভিউয়ার এনগেজমেন্ট: ভিউয়ার এনগেজমেন্টের ওঠানামা, যেমন ভিউ, দেখার সময় বা ক্লিক-থ্রু রেট কমে যাওয়া, বিজ্ঞাপনের আয়কে প্রভাবিত করতে পারে। উচ্চ ব্যস্ততা আরও বিজ্ঞাপনদাতাদের আকর্ষণ করে।

বাজারের চাহিদা: বিজ্ঞাপনের আয় বাজারের চাহিদা এবং বিজ্ঞাপনদাতার বাজেট দ্বারা প্রভাবিত হয়। অর্থনৈতিক অবস্থা, মৌসুমী প্রবণতা, বা শিল্প-নির্দিষ্ট কারণগুলি বিজ্ঞাপনের সামগ্রিক চাহিদাকে প্রভাবিত করতে পারে, রাজস্বকে প্রভাবিত করে।

বিজ্ঞাপনদাতা কৌশল পরিবর্তন: বিজ্ঞাপনদাতারা তাদের কৌশল, বাজেট, বা লক্ষ্য পছন্দ সমন্বয় করতে পারে। বিজ্ঞাপনদাতার আচরণে পরিবর্তন প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপনের ইনভেন্টরির প্রাপ্যতা এবং মানকে প্রভাবিত করতে পারে।

অ্যালগরিদম পরিবর্তন: YouTube প্রায়ই বিষয়বস্তু সুপারিশ এবং বিজ্ঞাপন প্লেসমেন্টের জন্য তার অ্যালগরিদম আপডেট করে। অ্যালগরিদম পরিবর্তনগুলি বিজ্ঞাপনের দৃশ্যমানতা এবং কর্মক্ষমতা প্রভাবিত করতে পারে, রাজস্ব প্রভাবিত করে।

অ্যাড ব্লকার: যে ব্যবহারকারীরা অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করেন তারা বিজ্ঞাপন প্রদর্শন রোধ করে বিজ্ঞাপনের আয়কে প্রভাবিত করতে পারেন। বিজ্ঞাপনদাতারা এমন ইম্প্রেশনের জন্য অর্থ প্রদান করতে কম ইচ্ছুক হতে পারে যা দর্শকদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ দ্বারা দেখা যায় না।

বাজার প্রতিযোগিতা: বিজ্ঞাপন স্থানের জন্য সামগ্রী নির্মাতাদের মধ্যে বর্ধিত প্রতিযোগিতা বিজ্ঞাপনের হারকে প্রভাবিত করতে পারে। উচ্চ প্রতিযোগীতামূলক কুলুঙ্গিতে থাকা চ্যানেলগুলি আয়ের ওঠানামা অনুভব করতে পারে।

বিজ্ঞাপনের গুণমান: বিজ্ঞাপনদাতারা তাদের বিজ্ঞাপনের গুণমান, প্রাসঙ্গিকতা বা লক্ষ্যমাত্রা পরিবর্তন করতে পারে। উচ্চ-মানের, লক্ষ্যযুক্ত বিজ্ঞাপনগুলি দর্শকদের আকৃষ্ট করার এবং রাজস্ব উৎপন্ন করার সম্ভাবনা বেশি।

বৈশ্বিক ঘটনা বা সংকট: বাহ্যিক কারণ, যেমন বৈশ্বিক ঘটনা বা অর্থনৈতিক সংকট, বিজ্ঞাপনের বাজেট এবং বাজারের গতিশীলতাকে প্রভাবিত করতে পারে। বিজ্ঞাপনদাতারা অনিশ্চয়তার সময় ব্যয় সামঞ্জস্য করতে পারে।

দর্শকের ভূগোল: আপনার দর্শকদের ভৌগলিক অবস্থান বিজ্ঞাপনের হারকে প্রভাবিত করতে পারে। বিজ্ঞাপনদাতারা অঞ্চলের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন হার দিতে পারে এবং দর্শক জনসংখ্যার পরিবর্তন রাজস্বকে প্রভাবিত করতে পারে।

আপনি যদি YouTube বিজ্ঞাপনের আয়ে হঠাৎ করে হ্রাস লক্ষ্য করেন, তাহলে উপরে উল্লিখিত কারণগুলি তদন্ত করার পরামর্শ দেওয়া হয়। দর্শকদের আচরণে পরিবর্তনগুলি বুঝতে, সামগ্রীর কার্যকারিতা নিরীক্ষণ করতে এবং বিজ্ঞাপন নগদীকরণের স্থিতি বা নীতি লঙ্ঘন সম্পর্কিত যে কোনও বিজ্ঞপ্তি পর্যালোচনা করতে YouTube Analytics ব্যবহার করুন।

Continue Reading

Entrepreneur

বাংলাদেশি ৫ স্টার্টআপকে নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় ডেমো ডে সিরেমনি

Published

on

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের আওতায় আইডিয়া প্রকল্পের একটি অন্যতম উদ্যোগ হলো বাংলাদেশ-দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ আয়োজন ‘আইডিয়াথন’ (ideaTHON) কনটেস্ট।

মঙ্গলবার এই কনটেস্টের বিজয়ী সেরা পাঁচ বাংলাদেশি স্টার্টআপকে নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় ছয় মাসের প্রশিক্ষণের আওতায় কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টার (কেপিসি) কর্তৃক আয়োজন করা হয় ‘বাংলাদেশ ফ্রন্টিয়ার স্টার্টআপস্ বিজনেস প্রিপ্যারেশন সাপোর্ট’ শীর্ষক ভার্চুয়াল ডেমো ডে সিরেমনি।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে, এই আয়োজনে বাংলাদেশি পাঁচ বিজয়ী স্টার্টআপ বিচারকদের সামনে প্রেজেন্টেশন দেন এবং সবশেষে এএনটিটি রোবোটিক্স লিমিটেডকে প্রথম স্থানকারী বিজয়ী হিসেবে নাম ঘোষণা করা হয়। আয়োজনে প্রধান অতিথি হিসেবে অনলাইনে সংযুক্ত হন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের বন্ধু রাষ্ট্র হিসেবে ১৯৭৩ সাল থেকে দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে একটি ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। দক্ষিণ কোরিয়ায় এই কর্মসূচি আয়োজনের জন্য প্রতিমন্ত্রী কেপিসি এবং বাংলাদেশ ফ্রন্টিয়ার স্টার্টআপস বিজনেস প্রিপ্যারেশন সাপোর্ট প্রজেক্টকে ধন্যবাদ জানান, যা দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বের আরেকটি মাইলফলক যোগ করেছে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার একটি ভিশন শেয়ার করেন। সেই ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়, বরং এটি একটি অনুপ্রেরণামূলক বাস্তবতা। তিনি অনুষ্ঠানে আরও বলেন, লকডাউনের কারণে দেশগুলো অর্থনৈতিক মন্দার সম্মুখীন হলেও দেশের মানুষের জীবনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রযুক্তির সুযোগ কাজে লাগাতে পেরেছে বাংলাদেশ।

প্রতিমন্ত্রী জানান, একাডেমিয়াদের জন্য এরই মধ্যে স্কুল ও কলেজে আট হাজারেরও বেশি শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে, যেখানে পাঁচ হাজারেরও বেশি প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে এবং ১৫ হাজারের বেশি পাইপলাইনে রয়েছে। প্রযুক্তি এবং সৃজনশীলতা মাধ্যমগুলিকে বিকেন্দ্রীভূত করার জন্য প্রায় ৩০০টি ফিউচার অব স্কুল বাস্তাবায়ন করা হচ্ছে, যেখানে স্কুল এবং কলেজের শিক্ষার্থীদের তাদের কোডিং, প্রোগ্রামিং, ক্রিটিকাল থিংকিং, ডিজাইন থিংকিং এবং ভবিষ্যতের প্রযুক্তির জন্য তাদের প্রস্তুত করতে প্রয়োজনীয় দক্ষতা বিকাশের সুবিধা দেওয়া হবে।

সারা দেশে ৩৩টি পাবলিক এবং প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩৩টিরও বেশি বিশেষ 4IR প্রযুক্তিভিত্তিক ল্যাব সরবরাহ করা হয়েছে। বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে, যাতে নন-গ্র্যাজুয়েট যুবকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠিত শেখ কামাল আইটি বিজনেস ইনকিউবেটরকে লক্ষ্য করে বিশ্ববিদ্যালয়ের রিপোর্ট এবং থিসিস বা রিয়েল লাইফ প্রোডাক্ট সেবার গবেষণাপত্র চালু করে যাতে আমরা বাজারে নতুন ও উপযুক্ত উদ্ভাবন আনতে পারি এবং একাডেমিয়া থেকে শিল্পের মধ্যে একটি নতুন ব্যবসায়িক উদ্যোগ তৈরি করতে পারি, সেই প্রচেষ্টাও চলমান রয়েছে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং-কিউন বলেন, বাংলাদেশি স্টার্টআপ যারা এই প্রোগ্রামে যোগদান করেছে, তারা সফলভাবে প্রোগ্রামের প্রত্যাশা এবং প্রাথমিক লক্ষ্যসমূহ পূরণ করেছে। তিনি বাংলাদেশের প্রশংসা করে আরও জানান, বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি ২০০৯ সাল থেকে প্রায় তিন গুণ বেড়েছে এবং দেশটি দারুণ কাজ করছে। বাংলাদেশ সফলভাবে করোনা মহামারি মোকাবিলা করছে এবং এটি সত্যিই প্রশংসনীয়। পরে তিনি আইডিয়াথন বিজয়ী যারা দক্ষিণ কোরিয়ায় তাদের ছয় মাসের দীর্ঘ প্রশিক্ষণ সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন, তাঁদের অভিনন্দন জানান।

অনলাইনভিত্তিক এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত লি জ্যাং-কিউন এবং বাংলাদেশ সরকারের আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম পিএএ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন দক্ষিণ কোরিয়ার কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টারের (কেপিসি) চেয়ারম্যান আন ওয়াং-জি।

এ ছাড়া আয়োজনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) নির্বাহী পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব পার্থপ্রতিম দেব, আইডিয়া প্রকল্পের পরিচালক ও যুগ্ম-সচিব মো. আব্দুর রাকিব।

উল্লেখ্য, মুজিব শতবর্ষে Let’s Start You Up স্লোগান নিয়ে আয়োজিত আইডিয়াথন কনটেস্টের বিজয়ী পাঁচ দল ২০২০ সালের ডিসেম্বরে তিন হাজার ১৪৭টি আবেদনকারীর মধ্যে কঠিন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত হয়। ওই বছরের ২৪ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত এই আয়োজনের সমাপনী অনুষ্ঠানে কৃষিয়ান, চার ছক্কা লিমিটেড, এএনটিটি রোবোটিক্স লিমিটেড, রক্ষী লিমিটেড এবং ছবির বাক্স; এই পাঁচ বাংলাদেশি স্টার্টআপ বিজয়ী হিসেবে পুরস্কার ও সম্মাননা গ্রহণ করে। সবশেষে, এ বছরের ৮ মার্চ ছয় মাসের বিশেষ প্রশিক্ষণ গ্রহণের লক্ষ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন এই বিজয়ী দলগুলো থেকে ১০ জন তরুণ উদ্যোক্তা। দক্ষিণ কোরিয়ার বিশেষজ্ঞ, উদ্ভাবক এবং সফল স্টার্টআপদের সাথে গত ছয় মাস তাদের ব্যবসা ও বাণিজ্যিকীকরণের সুযোগ বিকাশের চিন্তাধারা নিয়ে কাজ করেন বাংলাদেশের এই তরুণেরা।

কোরিয়া প্রোডাক্টিভিটি সেন্টার (কেপিসি) এবং কোরিয়া ইনভেনশন প্রমোশন অ্যাসোসিয়েশন (কাইপা) স্টার্টআপদের প্রশিক্ষণ ও দক্ষতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক উদ্যোক্তা ও বেসরকারি বিনিয়োগকারীদের সাথে যোগাযোগ সহায়তার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পেটেন্ট, ডিজাইন, কপিরাইট এবং ট্রেডমার্ক অধিকার প্রাপ্তিতেও তাদের সহায়তা করা হচ্ছে। এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশের এই উদীয়মান স্টার্টআপগণ ভবিষ্যতে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে দেশের নাম উজ্জ্বল করার পাশাপাশি প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা বিনিয়োগ আনতে সক্ষম হবে বলে মনে করছে আয়োজক কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে, এএনটিটি রোবোটিক্স লিমিটেড তাদের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বেইজড লার্নিং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম নিয়ে অ্যান্জেল ইনভেস্টমেন্ট হিসেবে তাদের উদ্ভাবন এডুব্লক-এর ২০০ পিসের বেশি রোবটিক কিটসের মূল্য এবং এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানের এক চতুর্থাংশের কাজের খরচের মূল্য বিনিয়োগ ফান্ড হিসেবে গ্রহণের প্রস্তাব পায়।

এ ছাড়া এ প্রতিযোগিতা ও বিজয়ী পাঁচ স্টার্টআপের ১০ জন তরুণ উদ্যোক্তাকে দক্ষিণ কোরিয়ায় ছয় মাসের প্রশিক্ষণ প্রদানের যাবতীয় খরচ বাবদ প্রায় চার কোটি টাকা অর্থ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের আওতায় আইডিয়া প্রকল্প হতে বহন করা হয়েছে।

Continue Reading

Entrepreneur

ইউটিউব মাসে ‘শর্টস’ নির্মাতাদের দেবে ১০ হাজার ডলার

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
‘শর্টস’ নির্মাতাদের প্রতি মাসে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউটিউব। ভিডিও শেয়ারিং বাজারে ইউটিউবের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী এখন টিকটক। ওই অ্যাপটির সঙ্গে পাল্লা দিতেই নতুন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট দ্য ভার্জ জানিয়েছে, টিকটিকের বিপরীতে নিজেদের অবস্থান নিশ্চিত করতে আগামী এক বছরে ‘শর্টস’ নির্মাতাদের মোট ১০ কোটি ডলার দেবে ইউটিউব।

ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে তার মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সুযোগ করে দিয়ে বাজারে সাফল্য পেয়েছে টিকটক। ওই একই বাজার ধরতে ইউটিউব নিজস্ব সেবায় যোগ করে ‘শর্টস’ ফিচার। এই ফিচার ব্যবহারে কনটেন্ট নির্মাতাদের উদ্বুদ্ধ করতেই ১০ কোটি ডলারের তহবিল গঠন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ইউটিউবের নতুন তহবিলের কারণে কনটেন্ট নির্মাতাদের মাসিক কামাইয়ের বড় একটা সুযোগ তৈরি হলেও সেটি নির্ভর করবে অনেকগুলো বিষয়ের উপর। জনপ্রিয় হতে হবে নির্মাতার তৈরি ‘শর্টস’ ভিডিওগুলো, প্রতি মাসে কত জন মানুষ ওই ভিডিওগুলো বানাচ্ছেন, কতোজন দেখেছেন, এবং নির্মাতার দর্শকদের ভৌগলিক অবস্থানের বিবেচনায় নির্ধারণ করা হবে নির্মাতাদের কে কত পাবেন।

একদম নতুন ভিডিও হতে হবে ওই ‘শর্টস’গুলোকে। পুরোনো ভিডিওগুলো নতুন করে আপলোড করলে, অথবা টিকটকের মতো অন্য প্ল্যাটফর্মের জলছাপ আছে এমন কোনো ভিডিও পোস্ট করলে তার বিপরীতে আয় হবে না নির্মাতাদের।

প্রাথমিক অবস্থায় ইউটিউবের এই নতুন ‘শর্টস’ তহবিল সুবিধা পাবেন ১০টি অঞ্চলের নির্মাতারা। এর মধ্যে আছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত ও ব্রাজিল। ভবিষ্যতে অন্যান্য অঞ্চলের নির্মাতাদের এই তহবিলের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছে ইউটিউব।

সাধারণত ভিডিওর সঙ্গে ইউটিউব যে বিজ্ঞাপন জুড়ে দেয়, সেখান থেকেই আয় হয় কনটেন্ট নির্মাতাদের। কত জন ওই বিজ্ঞাপন দেখছেন তার উপর নির্মাতাদের আয় সরাসরি নির্ভর করতো। কিন্তু ‘শর্টস’ ভিডিওগুলোর দৈর্ঘ্য কম হওয়ায় তার সঙ্গে বিজ্ঞাপন জুড়ে দেওয়াটাও ঠিক যৌক্তিক নয়। অন্যদিকে এই ফিচারটির জনপ্রিয়তা বাড়াতে কনটেন্ট নির্মাতাদের অংশগ্রহনও প্রয়োজন। তাই নির্মাতাদের আর্থিকভাবে পুরস্কৃত করার জন্য বিকল্প রাস্তা খুঁজছে ইউটিউব।

‘শর্টস’ নিয়ে নতুন এই তহবিল ভবিষ্যতে ‘স্থায়ী মূল্যায়ন প্রকল্প’ দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন ইউটিউবের প্রধান পণ্য ব্যবস্থাপক নিল মোহান। নতুন তহবিলটি শর্টস ভিডিও নির্মাতাদের আর্থিকভাবে লাভবান করার উপায় খোঁজার অংশ বলে জানিয়েছেন তিনি। “আপনি আসলে একটি ‘শর্টস’ ফিড ভোগ করবেন, তাই মডেলটাও ভিন্নভাবে কাজ করতে হবে”, যোগ করেন মোহান।

নির্মাতাদের আর্থিকভাবে লাভবান করার জন্য এমন পরিকল্পনা প্রযুক্তি বাজারে নতুন নয়। টিকটিক ও স্ন্যাপচ্যাট, উভয়েই বিজ্ঞাপনের বদলে জনপ্রিয়তার হিসেবে আর্থিক সুবিধা দিয়ে থাকে কনটেন্ট নির্মাতাদের। তবে ওই অ্যাপগুলোতে কনটেন্ট নির্মাতাদের মাসিক কামাইয়ে সঠিক অঙ্ক নির্ধারণের বিষয়টি পুরোপুরি স্বচ্ছ নয় বলে জানিয়েছে দ্য ভার্জ।

অন্যদিকে, ইউটিউবের ‘শর্টস’ তহবিল আদতে দেরিতে হলেও একটি উদীয়মান বাজারে শক্ত অবস্থার গড়ার চেষ্টা বলে জানিয়েছে সাইটটি।
তবে ইউটিউবে নির্মাতাদের ‘এনগেজমেন্ট’ বাড়ানোর জন্য ‘শর্টস’ ব্যবহার করতে হবে না বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন মোহান। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে সব নির্মাতাকে আলাদা কণ্ঠ দেওয়া। আমাদের নির্মাতারা যদি সেটা নির্দিষ্ট একটা বিষয়ে দুই ঘণ্টার তথ্য চিত্রের মাধ্যমে করতে চান, তাহলে সেটা ইউটিউবেই হওয়া উচিত। তারা যদি সেটা ১৫ সেকেন্ডের ভিডিওর মাধ্যমে করতে চান, আর তার সঙ্গে মেশাতে চান পছন্দের শিল্পীর জনপ্রিয় গান, সেটাও করতে পারা উচিত তাদের”।

Continue Reading

Trending