Tech Express
techexpress.com.bd

ইউটিউব মাসে ‘শর্টস’ নির্মাতাদের দেবে ১০ হাজার ডলার

নিউজ ডেস্ক:
‘শর্টস’ নির্মাতাদের প্রতি মাসে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউটিউব। ভিডিও শেয়ারিং বাজারে ইউটিউবের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী এখন টিকটক। ওই অ্যাপটির সঙ্গে পাল্লা দিতেই নতুন এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট দ্য ভার্জ জানিয়েছে, টিকটিকের বিপরীতে নিজেদের অবস্থান নিশ্চিত করতে আগামী এক বছরে ‘শর্টস’ নির্মাতাদের মোট ১০ কোটি ডলার দেবে ইউটিউব।

ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে তার মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সুযোগ করে দিয়ে বাজারে সাফল্য পেয়েছে টিকটক। ওই একই বাজার ধরতে ইউটিউব নিজস্ব সেবায় যোগ করে ‘শর্টস’ ফিচার। এই ফিচার ব্যবহারে কনটেন্ট নির্মাতাদের উদ্বুদ্ধ করতেই ১০ কোটি ডলারের তহবিল গঠন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

ইউটিউবের নতুন তহবিলের কারণে কনটেন্ট নির্মাতাদের মাসিক কামাইয়ের বড় একটা সুযোগ তৈরি হলেও সেটি নির্ভর করবে অনেকগুলো বিষয়ের উপর। জনপ্রিয় হতে হবে নির্মাতার তৈরি ‘শর্টস’ ভিডিওগুলো, প্রতি মাসে কত জন মানুষ ওই ভিডিওগুলো বানাচ্ছেন, কতোজন দেখেছেন, এবং নির্মাতার দর্শকদের ভৌগলিক অবস্থানের বিবেচনায় নির্ধারণ করা হবে নির্মাতাদের কে কত পাবেন।

একদম নতুন ভিডিও হতে হবে ওই ‘শর্টস’গুলোকে। পুরোনো ভিডিওগুলো নতুন করে আপলোড করলে, অথবা টিকটকের মতো অন্য প্ল্যাটফর্মের জলছাপ আছে এমন কোনো ভিডিও পোস্ট করলে তার বিপরীতে আয় হবে না নির্মাতাদের।

প্রাথমিক অবস্থায় ইউটিউবের এই নতুন ‘শর্টস’ তহবিল সুবিধা পাবেন ১০টি অঞ্চলের নির্মাতারা। এর মধ্যে আছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ভারত ও ব্রাজিল। ভবিষ্যতে অন্যান্য অঞ্চলের নির্মাতাদের এই তহবিলের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছে ইউটিউব।

সাধারণত ভিডিওর সঙ্গে ইউটিউব যে বিজ্ঞাপন জুড়ে দেয়, সেখান থেকেই আয় হয় কনটেন্ট নির্মাতাদের। কত জন ওই বিজ্ঞাপন দেখছেন তার উপর নির্মাতাদের আয় সরাসরি নির্ভর করতো। কিন্তু ‘শর্টস’ ভিডিওগুলোর দৈর্ঘ্য কম হওয়ায় তার সঙ্গে বিজ্ঞাপন জুড়ে দেওয়াটাও ঠিক যৌক্তিক নয়। অন্যদিকে এই ফিচারটির জনপ্রিয়তা বাড়াতে কনটেন্ট নির্মাতাদের অংশগ্রহনও প্রয়োজন। তাই নির্মাতাদের আর্থিকভাবে পুরস্কৃত করার জন্য বিকল্প রাস্তা খুঁজছে ইউটিউব।

‘শর্টস’ নিয়ে নতুন এই তহবিল ভবিষ্যতে ‘স্থায়ী মূল্যায়ন প্রকল্প’ দিয়ে প্রতিস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন ইউটিউবের প্রধান পণ্য ব্যবস্থাপক নিল মোহান। নতুন তহবিলটি শর্টস ভিডিও নির্মাতাদের আর্থিকভাবে লাভবান করার উপায় খোঁজার অংশ বলে জানিয়েছেন তিনি। “আপনি আসলে একটি ‘শর্টস’ ফিড ভোগ করবেন, তাই মডেলটাও ভিন্নভাবে কাজ করতে হবে”, যোগ করেন মোহান।

নির্মাতাদের আর্থিকভাবে লাভবান করার জন্য এমন পরিকল্পনা প্রযুক্তি বাজারে নতুন নয়। টিকটিক ও স্ন্যাপচ্যাট, উভয়েই বিজ্ঞাপনের বদলে জনপ্রিয়তার হিসেবে আর্থিক সুবিধা দিয়ে থাকে কনটেন্ট নির্মাতাদের। তবে ওই অ্যাপগুলোতে কনটেন্ট নির্মাতাদের মাসিক কামাইয়ে সঠিক অঙ্ক নির্ধারণের বিষয়টি পুরোপুরি স্বচ্ছ নয় বলে জানিয়েছে দ্য ভার্জ।

অন্যদিকে, ইউটিউবের ‘শর্টস’ তহবিল আদতে দেরিতে হলেও একটি উদীয়মান বাজারে শক্ত অবস্থার গড়ার চেষ্টা বলে জানিয়েছে সাইটটি।
তবে ইউটিউবে নির্মাতাদের ‘এনগেজমেন্ট’ বাড়ানোর জন্য ‘শর্টস’ ব্যবহার করতে হবে না বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন মোহান। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে সব নির্মাতাকে আলাদা কণ্ঠ দেওয়া। আমাদের নির্মাতারা যদি সেটা নির্দিষ্ট একটা বিষয়ে দুই ঘণ্টার তথ্য চিত্রের মাধ্যমে করতে চান, তাহলে সেটা ইউটিউবেই হওয়া উচিত। তারা যদি সেটা ১৫ সেকেন্ডের ভিডিওর মাধ্যমে করতে চান, আর তার সঙ্গে মেশাতে চান পছন্দের শিল্পীর জনপ্রিয় গান, সেটাও করতে পারা উচিত তাদের”।

Leave A Reply

Your email address will not be published.