Connect with us

Telecom

অ্যাড মানি ও ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধে স্বাস্থ্যখাতে অনুদান

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
বিকাশে গ্রাহক অ্যাড মানি বা ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করলে দেশের স্বাস্থ্যখাতে অনুদান হিসেবে যোগ হবে ১০ টাকা। কোনো গ্রাহক তার বিকাশ অ্যাকাউন্টে ৫০০০ হাজার টাকা বা তার বেশি অ্যাড মানি করলে ১০ টাকা এবং সমপরিমাণ ভিসা/অ্যামেক্স ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করলেও ১০ টাকা অনুদান হিসেবে দেশের স্বাস্থ্যখাতে পৌঁছে দেবে বিকাশ।

করোনার এই সময়ে বিকাশে নিরাপদে লেনদেনের পাশাপাশি এই অনুদান গ্রাহকদের জন্য দেশের জরুরী চিকিৎসা সেবায় অবদান রাখার সুযোগ করে দিবে।

অ্যাড মানি এবং ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের মাধ্যমে অনুদানের এই সুযোগ থাকবে ৯ জুলাই, ২০২১ পর্যন্ত। প্রতিটি ক্যাম্পেইনে অংশ নিয়ে সর্বোচ্চ ১০ টাকা করে মোট ২০ টাকা অনুদান করার সুযোগ পাবেন গ্রাহক।

অ্যাড মানি ক্যাম্পেইনের বিস্তারিত জানতে https://www.bkash.com/bn/add_money_10tk_donation ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হবে। আর ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের ক্যাম্পেইনের বিস্তারিত জানা যাবে https://www.bkash.com/credit_card_10tk_donation ওয়েবসাইটে।

করোনার সময়ে গ্রাহকরা যেকোনো প্রয়োজনে বিকাশ অ্যাপ দিয়ে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বা কার্ড থেকে নিজের বা অন্যের বিকাশ অ্যাকাউন্টে অ্যাড মানি করতে পারছেন কোনো খরচ ছাড়াই। ঘরে বসেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ২৯টি ব্যাংক এবং বাংলাদেশে ইস্যুকৃত যেকোনো ভিসা/মাস্টারকার্ড থেকে অ্যাড মানি করে গ্রাহকরা সেন্ড মানি, মোবাইল রিচার্জ, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, অফলাইন বা অনলাইন কেনাকাটার পেমেন্ট, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুদান, স্কুল কলেজের বেতন পরিশোধ, বিভিন্ন ধরনের অনলাইন নিবন্ধনের ফি পরিশোধ সহ অসংখ্য সেবা খুব সহজেই নিতে পারছেন। এছাড়া জরুরী প্রয়োজনে দেশজুড়ে বিকাশ-এর ২ লাখ ৭০ হাজার এজেন্ট পয়েন্টে গিয়ে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্যাশ আউটও করতে পারছেন গ্রাহক।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Highlights

চাপে পড়ে সব ধরনের রিচার্জে মেয়াদ বাড়ালো গ্রামীণফোন

Published

on

গ্রাহকদের চাপের মুখে অবশেষে সব ধরনের রিচার্জে মেয়াদ বাড়িয়েছে মোবাইলফোন অপারেটর গ্রামীণফোন। নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, এখন থেকে সর্বনিম্ন ২০ টাকা রিচার্জে ১০ দিনের পরিবর্তে মেয়াদ হবে ৩৫ দিন।

পাশাপাশি গ্রাহকদের প্রয়োজনীয়তা মাথায় রেখে অন্যান্য পরিমাণ টাকা রিচার্জের ক্ষেত্রেও মেয়াদ বাড়িয়েছে অপারেটরটি।বৃহস্পতিবার (২ মে) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে গ্রামীণফোন।

বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, এখন থেকে গ্রামীণফোনের ৩০-৪৯ টাকা রিচার্জের ক্ষেত্রে মেয়াদ হবে ৩৫ দিন, যা আগে ছিল ১৫ দিন। ৫০-১৪৯ টাকা রিচার্জের মেয়াদ ৩০ দিন থেকে বাড়িয়ে ৪৫ দিন এবং ১৫০-২৯৯ টাকা রিচার্জের মেয়াদ ৪৫ দিন থেকে বাড়িয়ে ৬৫ দিন করা হয়েছে। ২৯৯ টাকার বেশি যে কোনো রিচার্জের মেয়াদ হবে ৩৯৫ দিন।

সব ধরনের প্রিপেইড গ্রাহক ইলেকট্রনিক রিচার্জ সিস্টেম (ইআরএস), মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) এবং অনলাইন রিচার্জের মাধ্যমে অফারগুলো উপভোগ করতে পারবেন। রিচার্জের মেয়াদকাল রিচার্জের দিন থেকে শুরু হবে।

গ্রামীণফোনের চিফ মার্কেটিং অফিসার মোহাম্মদ সাজ্জাদ হাসিব বলেন, গ্রামীণফোনের সব কার্যক্রমের কেন্দ্রে থাকেন গ্রাহকরা। তাদের বৈচিত্র্যময় চাহিদা পূরণে প্রতিনিয়ত সহজ ও সুবিধাজনক অফার দেওয়ার চেষ্টা করছে গ্রামীণফোন।

তিনি আরও বলেন, আমাদের গ্রাহকরা যেন সংযুক্ত থাকতে পারেন এবং তাদের আজকের গতিময় বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার সক্ষমতা থাকে- এজন্য বর্ধিত মেয়াদের নতুন অফারগুলো চালু করতে পেরে আমরা আনন্দিত। নতুন অফারগুলো গ্রাহকদের অভিজ্ঞতাকে সমৃদ্ধ করতে এবং ভবিষ্যতের পথ প্রশস্ত করার ক্ষেত্রে গ্রামীণফোনের অঙ্গীকার প্রতিফলিত করে, যেখানে সবার জন্য সংযোগ হবে একটি মূল চালিকাশক্তি।

Continue Reading

Highlights

‘মোবাইল ইন্টারনেটও হবে এক দেশ এক রেট’

Published

on

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল সংযুক্তি এবং শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য অপরিহার্য। দেশের মানুষকে ডিজিটাল সংযুক্তির মহাসড়কে নিয়ে আসার জন্য দায়িত্ব নিয়ে আমরা কাজ করছি। তিনি বলেন, ‘ইন্টারনেট সহজলভ্য করতে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট এক দেশ এক রেটের আওতায় এনেছি। মোবাইল ইন্টারনেটের ক্ষেত্রেও এই পদ্ধতি এক দেশ এক রেট হবে বাস্তবায়ন করা হবে।’

‘বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস-২০২৩’ উদযাপন উপলক্ষে বুধবার (১৭ মে) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব আবু হেনা মোরশেদ জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক হিসেবে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

বাংলাদেশ স‌্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের চেয়ারম‌্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ মাহফুজুল ইসলাম এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মাহবুব-উল-আলম অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

মোস্তাফা জব্বার বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবেসের তাৎপর্য তুলে ধরে বলেন, ‘১৯৭৩ সালে আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন্স ইউনিয়ন ও ইউনিভার্সেল পোস্টাল ইউনিয়নের সদস্যপদ গ্রহণ, ১৯৭৫ সালের ১৪ জুন বেতবুনিয়ায় ভূ-উপগ্রহ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা, টিঅ্যান্ডটি বোর্ড গঠন ও কারিগরি শিক্ষা প্রসারে গৃহীত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তি বিকাশে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের সূচনা করেছিলেন।’

১৭ মে বাংলাদেশের জাতীয় জীবনের এক অনন্য দিন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘বাঙালি জাতির জন্য এই দিনটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দিন। এই দিনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা পঁচাত্তর পরবর্তী ছয় বছরের লড়াই, দুঃখ-কষ্ট, নানা প্রতিকূলতা অতিক্রম করে বাংলাদেশে পদার্পণ করেছিলেন। তিনি ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচির মতো দুঃসাহসিক ও দূরদৃষ্টি-সম্পন্ন কর্মসূচি না নিলে আজকের এই বাংলাদেশ আমরা পেতাম না।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৭ সালে দেশে টু-জি, ২০১৩ সালে থ্রি-জি, ২০১৮ সালে ফোর-জি এবং ২০২১ সালে ফাইভ-জি প্রচলন করেন।’

সভাপতির বক্তৃতায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব বলেন, ‘স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় ২০৪১ সালে বাংলাদেশ হবে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ, প্রযুক্তি দুনিয়ায় নেতৃত্ব প্রদানকারী বাংলাদেশ।’

বিটিআরসির চেয়ারম্যান মূল প্রবন্ধে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় স্মার্ট সংযোগ, স্মার্ট ডিভাইস বৃদ্ধি, মানবসম্পদ উন্নয়নে প্রশিক্ষণ, স্মার্ট প্রোগ্রেস মনিটরিং এবং আরঅ্যান্ডডি’র প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

ডিজিটাল ডিভাইড দূর করতে ডিজিটাল প্রযুক্তি সহজলভ্য করার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, ‘স্বল্পোন্নত দেশগুলোতে ক্ষমতায়নে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার বৃদ্ধির বিকল্প নেই।’

বিশ্ব টেলিযোগাযোগ ও তথ্য সংঘ দিবস উদযাপন করতে ডাক অধিদফতর ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম, ৫ টাকা মূল্যমানের একটি ডাটা কার্ড এবং বিশেষ সিলমোহর প্রকাশ করেছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে সংযুক্ত হয়ে স্মারক ডাকটিকিট ও উদ্বোধনী খাম অবমুক্ত করেন।

Continue Reading

Highlights

বিকাশ হ্যাক করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

Published

on

রাজশাহীর সীমান্তবর্তী উপজেলা বাঘা। এখানে প্রতিনিয়ত বেড়ে চলেছে ইমো-বিকাশ হ্যাকারদের দৌরাত্ম্য। সম্প্রতি এ চক্রের ৩ সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর তারা আরও ২৩ জনের নাম প্রকাশ করেছে। রোববার (৭ মে) উপজেলার ছাতারী এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন রাজা আলী, বুলবুল আহাম্মেদ ও আশিকুর রহমান আশিক।

জানা গেছে, তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার সহজ হওয়ায় ইমো এবং বিকাশ হ্যাকিং খুব সহজ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে প্রবাসীরা প্রায়শই এদের প্রতারণার ফাঁদে পড়ছে। প্রতারক চক্রের সদস্যরা ফেসবুক, ইউটিউব এবং বিকাশ হ্যাকসহ বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে তাদের অপরাধ কার্যক্রম নানা কৌশলে চালিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এসব অপরাধীদের পেছনে রয়েছে কিছু রাজনৈতিক নেতা। যারা সব সময় ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে তাদের সহায়তা দিচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, সীমান্তবর্তী উপজেলা হওয়ায় এদের প্রবণতা বাঘায় অনেক বেশি। বিশেষ করে উপজেলার আলাইপুর, কিশোরপুর, গোকুলপুর, পাকুড়িয়া, চাঁনপুর, খানপুর ও মীরগঞ্জসহ পার্শ্ববর্তী লালপুর উপজেলার দুড়দুড়িয়া এবং মনিরহারপুর এলাকা এদের দৌরাত্ম্যে অতিষ্ঠ হয়ে গেছে।

বাঘা থানার ওসি খাইরুল ইসলাম বলেন, বিকাশ থেকে টাকা বের করাটা এক ধরনের ডাকাতি। এদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে। অপরাধীরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষের ইমো হ্যাক করে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কৌশলে অর্থ আত্মসাৎ করে। এ ঘটনায় মামলা হলে ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদের বয়স ২০-২৩ বছরের মধ্যে। তারা এসব জালিয়াতিতে জড়িত ২৩ জনের নাম স্বীকার করেছে। এসব হ্যাকারদের নির্মূলে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

Continue Reading

Trending