Connect with us

Telecom

অ্যাড মানি ও ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধে স্বাস্থ্যখাতে অনুদান

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
বিকাশে গ্রাহক অ্যাড মানি বা ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করলে দেশের স্বাস্থ্যখাতে অনুদান হিসেবে যোগ হবে ১০ টাকা। কোনো গ্রাহক তার বিকাশ অ্যাকাউন্টে ৫০০০ হাজার টাকা বা তার বেশি অ্যাড মানি করলে ১০ টাকা এবং সমপরিমাণ ভিসা/অ্যামেক্স ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধ করলেও ১০ টাকা অনুদান হিসেবে দেশের স্বাস্থ্যখাতে পৌঁছে দেবে বিকাশ।

করোনার এই সময়ে বিকাশে নিরাপদে লেনদেনের পাশাপাশি এই অনুদান গ্রাহকদের জন্য দেশের জরুরী চিকিৎসা সেবায় অবদান রাখার সুযোগ করে দিবে।

অ্যাড মানি এবং ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের মাধ্যমে অনুদানের এই সুযোগ থাকবে ৯ জুলাই, ২০২১ পর্যন্ত। প্রতিটি ক্যাম্পেইনে অংশ নিয়ে সর্বোচ্চ ১০ টাকা করে মোট ২০ টাকা অনুদান করার সুযোগ পাবেন গ্রাহক।

অ্যাড মানি ক্যাম্পেইনের বিস্তারিত জানতে https://www.bkash.com/bn/add_money_10tk_donation ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হবে। আর ক্রেডিট কার্ডের বিল পরিশোধের ক্যাম্পেইনের বিস্তারিত জানা যাবে https://www.bkash.com/credit_card_10tk_donation ওয়েবসাইটে।

করোনার সময়ে গ্রাহকরা যেকোনো প্রয়োজনে বিকাশ অ্যাপ দিয়ে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বা কার্ড থেকে নিজের বা অন্যের বিকাশ অ্যাকাউন্টে অ্যাড মানি করতে পারছেন কোনো খরচ ছাড়াই। ঘরে বসেই সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ২৯টি ব্যাংক এবং বাংলাদেশে ইস্যুকৃত যেকোনো ভিসা/মাস্টারকার্ড থেকে অ্যাড মানি করে গ্রাহকরা সেন্ড মানি, মোবাইল রিচার্জ, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ, অফলাইন বা অনলাইন কেনাকাটার পেমেন্ট, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অনুদান, স্কুল কলেজের বেতন পরিশোধ, বিভিন্ন ধরনের অনলাইন নিবন্ধনের ফি পরিশোধ সহ অসংখ্য সেবা খুব সহজেই নিতে পারছেন। এছাড়া জরুরী প্রয়োজনে দেশজুড়ে বিকাশ-এর ২ লাখ ৭০ হাজার এজেন্ট পয়েন্টে গিয়ে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্যাশ আউটও করতে পারছেন গ্রাহক।

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Tech News

ট্যুরিস্ট সিম এবার বাংলাদেশে

Published

on

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশে ট্যুরিস্ট সিম চালু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। সম্প্রতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় বিটিআরসি।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ট্যুরিস্টদের জন্য ৭, ১৫, ৩০ দিন মেয়াদে এ সিম কার্ডগুলো সচল থাকবে। বাংলাদেশের যেকোনো স্থল, নৌ ও বিমানবন্দর থেকে এ সিম সংগ্রহ করা যাবে। ট্যুরিস্ট সিম একটি নির্দিষ্ট ব্লকের বাইরে দিতে পারবে না অপারেটরগুলো। এই সিম রূপান্তর করা যাবে না। যদি দীর্ঘমেয়াদী সিম প্রয়োজন হয় তবে বিডার ওয়ার্ক পারমিটের মাধ্যমে নিতে পারবে। বিদেশি বা পর্যটকদের জন্য ভিন্ন অফারও প্যাকেজ দিতে পারবে অপারেটরগুলো।

তবে দেশে ও বিদেশে ডেটা, ভয়েস, এসএমএস ও কম্বো প্যাকেজের বাইরে আর কোনো প্যাকেজ অফার করতে পারবে না। সেন্ট্রাল বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন মনিটরিং প্ল্যাটফর্মে এ সিম আলাদাভাবে চিহ্নিত করা হবে। একটি পাসপোর্টে সর্বোচ্চ দুটি সিম নিবন্ধন করা যাবে। থাকবে ই-সিম সুবিধাও।

Continue Reading

Highlights

রাজধানীর ২০০ স্থানে চালু হচ্ছে ফাইভ-জি

Published

on

দেশে চালু হচ্ছে ফাইভ-জি মোবাইল নেটওয়ার্ক সেবা। রাজধানীর প্রায় ২০০ টি স্থানে এ সেবা পাওয়া যাবে। এ পরিষেবা দেয়ার জন্য একটি প্রকল্প নেয়া হচ্ছে। ফাইভ-জি সেবা দিতে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়নে রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান টেলিটককে ২ হাজার ১৪৪ কোটি টাকা দেয়ার একটি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকের পর পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত ও অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মামুন আল রশীদ সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

একনেকে অনুমোদিত ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ‘গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং ৫-জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়ন’ প্রকল্প বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি।

তিনি বলেন, ঢাকার দুই শ’ স্থানে ফাইভ-জি হবে। এজন্য ভিন্ন একটি প্রকল্পের প্রস্তাব পেয়েছি। ৬ আগস্ট প্রকল্প প্রস্তাবনা আমাদের কাছে এসেছে। আমরা সেটা যাচাই করছি। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ঢাকায় এ সেবা চালু হবে।

শুরুতে ঢাকার কোন কোন এলাকায় ৫-জি চালু হবে সেই বিষয়ে কমিশন সদস্য বিস্তারিত জানাননি।

মামুন আল রশীদ বলেন, প্রকল্পের নাম দেখে কারও মনে হতে পারে এই প্রকল্প শেষ হলেই ৫-জি সেবা চালু হবে। বিষয়টি তা নয়। বিদ্যমান ২-জি, ৩-জি ও ৪-জি’র যে অবকাঠামো আছে সেটার মধ্যে কাজ করা হবে। ৫-জিতে যাওয়ার যে টার্গেট আছে সেটার প্রস্তুতি হিসেবে এ প্রকল্পে আমরা কিছু যন্ত্রপাতি স্থাপন করব।

Continue Reading

Highlights

২২০৪ কোটি টাকা সরকারি বিনিয়োগ পাচ্ছে টেলিটক

Published

on

নিউজ ডেস্ক:
নেটওয়ার্কের আধুনিকায়নে সরকারের পক্ষ থেকে দুই হাজার ২০৪ কোটি টাকা বিনিয়োগ পেতে যাচ্ছে রাষ্ট্রায়াত্ব টেলিকম সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান টেলিটক। মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে ‘গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও ৫জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্কের আধুনিকায়ন প্রকল্পের অনুমোদন করা হয়েছে।

এই প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রায় পুরো অর্থই জোগান দেয়া হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে। প্রকল্পটির জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ২ হাজার ১৪৪ কোটি টাকা। সরকারের পক্ষ থেকে দুই হাজার ২০৪ কোটি টাকা এবং মাত্র ৬০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা দেবে টেলিটক। চলতি বছরে শুরু হয়ে ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এর বাস্তবায়ন কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

জানা যায়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের উদ্যোগে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে প্রতিষ্ঠাকাল থেকে লস গুনতে থাকা এই টেলিকম অপারেটর। চলতি বছর থেকেই শুরু হতে যাওয়া এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন কাজ ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করার কথা আছে। নেটওয়ার্কের আধুনিকায়নের এই প্রকল্পের আওতায় নতুন তিন হাজার বিটিএস সাইট তৈরি, রুম, টাওয়ার, লক ইত্যাদি নির্মাণ করা হবে।

এছাড়াও টেলিটকের নিজস্ব ৫০০ টাওয়ার ও দুই হাজার ৫০০ টাওয়ার শেয়ারিং সাইট প্রস্তুত করা হবে। আর সেবা সক্ষমতা বাড়াতে থ্রিজি ও ফোরজির বিদ্যমান দুই হাজার সাইটের যন্ত্রপাতির ধারণক্ষমতা বাড়ানো হবে। ফিক্সড ওয়্যারলেস এক্সেস (এফডব্লিউএ) প্রযুক্তি স্থাপনের মাধ্যমে ঢাকার বাইরে হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সরকারি অফিস-আদালতে ইন্টারনেট সেবা বাড়াতে পাঁচ হাজার এফডব্লিউএ ডিভাইস স্থাপন করা হবে।

তবে সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের ব্যপারে টেলিটকের এক কর্মকর্তা বলেন, এই প্রকল্পে আমাদের বিদ্যমান যে অবকাঠামো আছে সেই টুজি, থ্রিজির উন্নয়নে কিছু কাজ করা হবে। আর সামনে যেহেতু ফাইভজিতে যাওয়ার টার্গেট আছে, ফাইভজির প্রস্তুতি হিসেবে আমরা কিছু ইকুইপমেন্ট বসাবো। ঢাকার ২০০ জায়গায় ফাইভজি চালু করার জন্য ভিন্ন প্রকল্প প্রস্তাব পেয়েছে, সেটা প্রসেস করছি। সেই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আমরা ফাইভজি পাব।

Continue Reading

Trending